Warning: in_array() expects parameter 2 to be array, string given in /home4/aags/public_html/RadwanChowdhury.info/wp-content/themes/Impreza/functions/meta-box_settings.php on line 144

Warning: in_array() expects parameter 2 to be array, string given in /home4/aags/public_html/RadwanChowdhury.info/wp-content/themes/Impreza/functions/bbpress.php on line 3

Warning: in_array() expects parameter 2 to be array, string given in /home4/aags/public_html/RadwanChowdhury.info/wp-content/themes/Impreza/admin/functions/functions.options.php on line 2406
Radwan Chowdhury – “Shubo Nabo Barsho” ~ Bengali New Year
Warning: in_array() expects parameter 2 to be array, string given in /home4/aags/public_html/RadwanChowdhury.info/wp-content/themes/Impreza/functions/enqueue.php on line 119

“Shubo Nabo Barsho” ~ Bengali New Year

(Bengali: নববর্ষ Nôbobôrsho (from Sanskrit Navavarsha=New Year) or Poela Boishakhi (পহেলা বৈশাখ Pôela Boishakhi or পয়লা বৈশাখ Pôela Boishakhi or Pohela Boishakhi, from Sanskrit= Pohela Vaisakhi) is the first day of the Bengali calendar, celebrated in both Bangladesh and West Bengal, and in Bengali communities in Assam and Tripura. Pohela Boishakhi connects all ethnic Bengalis irrespective of religious and regional differences. It falls on April 14 or April 15 of the Gregorian calendar depending on the use of the new amended or the old Bengali calendar respectively. In Bangladesh, it is celebrated on April 14 according to the official amended calendar designed by the Bangla Academy. In Bangladesh, Pohela Boishakhi is a national holiday and in West Bengal and Assam it is a public (state) holiday. in West Bengal and Assam it is a public (state) holiday and is publicly celebrated on April 14/15 every year. 

 

History ~

Pohela Boishakhi first day of the Bangla year. Pohela Boishakhi is celebrated in a festive manner in both Bangladesh and West Bengal. In Bangladesh Pohela Boishakhi is a national holiday. Pohela Baisakh falls on April 14 or 15.

Under the Mughals, agricultural taxes were collected according to the Hijri calendar. However, as the Hijri calendar is a lunar calendar, the agricultural year does not coincide with the fiscal. As a result, farmers were hard-pressed to pay taxes out of season. In order to streamline tax collection, the Mughal Emperor AKBAR ordered a reform of the calendar. Accordingly, Fatehullah Shirazi, a renowned scholar and astronomer, formulated the Bangla year on the basis of the lunar Hijri and Bangla solar calendars. The new Fasli San (agricultural year) was introduced on 10/11 March 1584, but was dated from Akbar’s ascension to the throne in 1556. The new year subsequently became known as BANGABDA or Bengali year.

Celebrations of Pohela Boishakhi started from Akbar’s reign. It was customary to clear up all dues on the last day of Chaitra. On the next day, or the first day of the new year, landlords would entertain their tenants with sweets. On this occasion there used to be fairs and other festivities. In due course the occasion became part of domestic and social life, and turned into a day of merriment. The main event of the day was to open a halkhata or new book of accounts. This was wholly a financial affair. In villages, towns and cities, traders and businessmen closed their old account books and opened new ones. They used to invite their customers to share sweets and renew their business relationship with them. This tradition is still practised, especially by jewelers.

Special foods are prepared to entertain guests. Boishakhi fairs are arranged in many parts of the country. Various agricultural products, traditional handicrafts, toys, cosmetics as well as various kinds of food and sweets. are sold at these fairs. The fairs also provide entertainment, with singers and dancers staging JATRA, PALA GAN, KAVIGAN, JARIGAN, GAMBHIRA GAN, GAZIR GAN and ALKAP GAN. They present folk songs as well as BAUL, marfati, MURSHIDI and BHATIALI songs. Narrative plays like LAILY-MAJNU, YUSUF-ZULEKHA and Radha-Krishna are staged. Among other attractions of these fairs are puppet shows and merry-go-rounds.
Many old festivals connected with new year’s day have disappeared, while new festivals have been added. With the abolition of the zamindari system, the PUNYA connected with the closing of land revenue accounts has disappeared. Kite flying in DHAKA and bull racing in MUNSHIGANJ used to be very colourful events. Other popular village games and sports were horse races, bullfights, cockfights, flying pigeons, boat racing. Some festivals, however, continue to be observed, for example, bali or wrestling in Chittagong and gambhira in Rajshahi.
Observance of Pohela Boishakhi has become popular in the cities. Early in the morning people gather under a big tree or on the bank of a lake to witness the sunrise. Artistes present songs to welcome the new year. People from all walks of life wear traditional Bengali dresses:
The most colorful new year’s day festival takes place in Dhaka. Large numbers of people gather early in the morning under the BANYAN TREE at Ramna Park where CHHAYANAT artistes open the day with Tagore’s famous song, Eso he Boishakhi eso eso (Come O Boishakhi, come), welcoming Boishakhi. A similar ceremony welcoming the new year is also held at the Institute of Fine Arts, UNIVERSITY OF DHAKA.

The historical importance of Pohela Boishakhi in the Bangladesh context may be dated from the observance of the day by Chhayanat in 1965. In an attempt to suppress Bengali culture, the Pakistan Government had banned TAGORE SONGS. Protesting this move, Chhayanat opened their Pohela Boishakhi celebrations at Ramna Park with Tagore’s song welcoming the month. The day continued to be celebrated in East Pakistan as a symbol of Bengali culture. After 1972 it became a national festival, a symbol of the Bangladesh nationalist movement and an integral part of the people’s cultural heritage.

Colorful celebration of Pohela Boishakhi ~

New Year’s festivities are closely linked with rural life in Bangladesh. Usually on Pohela Boishakhi, the home is thoroughly scrubbed and cleaned; people bathe early in the morning and dress in fine clothes. They spend much of the day visiting relatives, friends, and neighbours. Special foods are prepared to entertain guests. This is one rural festival that has become enormously big in the cities, especially in Dhaka.

Boishakhi fairs are arranged in many parts of the country. Various agricultural products, traditional handicrafts, toys, cosmetics, as well as various kinds of food and sweets are sold at these fairs. The fairs also provide entertainment, with singers and dancers staging jatra (traditional plays), pala gan, kobigan, jarigan, gambhira gan, gazir gan and alkap gan. They present folk songs as well as baul, marfati, murshidi and bhatiali songs. Narrative plays like Laila-Majnu, Yusuf-Zulekha and Radha-Krishna are staged. Among other attractions of these fairs are puppet shows and merry-go-rounds.

Many old festivals connected with New Year’s Day have disappeared, while new festivals have been added. With the abolition of the zamindari system, the punya connected with the closing of land revenue accounts has disappeared. Kite flying in Dhaka and bull racing in Munshiganj used to be very colourful events. Other popular village games and sports were horse races, bullfights, cockfights, flying pigeons, and boat racing. Some festivals, however, continue to be observed; for example, bali (wrestling) in Chittagong and gambhira in Rajshahi are still popular events.

Observance of Pohela Boishakhi has become popular in the cities. Early in the morning, people gather under a big tree or on the bank of a lake to witness the sunrise. Artists present songs to usher in the new year. People from all walks of life wear traditional Bengali attire: young women wear white saris with red borders, and adorn themselves with churi bangles, ful flowers, and tip (bindis). Men wear white paejama (pants) or lungi(dhoti/dhuti) (long skirt) and kurta (tunic). Many townspeople start the day with the traditional breakfast of panta bhat (rice soaked in water), green chillies, onion, and fried hilsa fish.

Panta Ilish – a traditional platter of leftover rice soaked in water with fried Hilsa, supplemented with dried fish (Shutki), pickles (Achar), lentils (dal), green chillies and onion – a popular dish for the Pohela Boishakhi festival.

The most colourful New Year’s Day festival takes place in Dhaka. Large numbers of people gather early in the morning under the banyan tree at Ramna Park where Chhayanat artists open the day with Rabindranath Tagore’s famous song, এসো, হে বৈশাখ, এসো এসো Esho, he Boishakhi, Esho Esho (Come, O Boishakhi, Come, Come). A similar ceremony welcoming the new year is also held at the Institute of Fine Arts, University of Dhaka. Students and teachers of the institute take out a colourful procession and parade round the campus. Social and cultural organisations celebrate the day with cultural programmes. Newspapers bring out special supplements. There are also special programmes on radio and television.

The historical importance of Pohela Boishakhi in the Bangladeshi context may be dated from the observance of the day by Chhayanat in 1965. In an attempt to suppress Bengali culture, the Pakistani Government had banned poems written by Rabindranath Tagore, the most famous poet and writer in Bengali literature. Protesting this move, Chhayanat opened their Pohela Boishakhi celebrations at Ramna Park with Tagore’s song welcoming the month. The day continued to be celebrated in East Pakistan as a symbol of Bengali culture. After 1972 it became a national festival, a symbol of the Bangladesh nationalist movement and an integral part of the people’s cultural heritage. Later, in the mid- 1980s the Institute of Fine Arts added colour to the day by initiating the Boishakhi parade, which is much like a carnival parade.

Today, Pohela Boishakhi celebrations also mark a day of cultural unity without distinction between class or religious affiliations. Of the major holidays celebrated in Bangladesh, only Pohela Boishakhi comes without any preexisting expectations (specific religious identity, culture of gift-giving, etc). Unlike holidays like Eid ul-Fitr, where dressing up in lavish clothes has become a norm, or Christmas where exchanging gifts has become an integral part of the holiday, Pohela Boishakhi is really about celebrating the simpler, rural roots of the Bengal. As a result, more people can participate in the festivities together without the burden of having to reveal one’s class, religion, or financial capacity.

In Chittagong Hill Tracts ~

The punya or rajpunya is now observed only in the three figurative tribal kingdoms in Bangladesh – Rangamati, Bandarban and Khagrachori. In Rangamati, the principal town of Chittagong Hill Tracts and the seat for the Hill Administrative Council, three different ethnic minority groups have come together to merge their observance of Pohela Boishakhi. Boisuk of Tripura people, Sangrai of Marma people and Biju of Chakma people have come together as BoiSaBi, a day of a wide variety of festivities. One of the more colorful activities of the day in the hills is the water festival of the Marma people.

Nabo Barsho Traditions and Customs ~

Almost all Bengalis decorate their houses with fresh flowers and draw rangolis in front of the entrance door. Rangolis are usually made of colored rice and it is known as “Alpana”. An earthen pot bearing the symbol of Swastika is kept in the middle of rangoli. It is believed to bring in wealth and symbolizes a prosperous New Year.

HaalKhata ~

As per the tradition, people are supposed to pay off all the loans and old dues with the customers are to be settled. On this day, Bengali businessmen purchase new accounts books and prepare new accounts called as Haalkhata.

“Pohela Boishaki Greetings and poem ~

  • Pohela Boishakhi stands for new and fresh – Life is always new and fresh – Let us strive to make all days Nava Barsho.
  • May this Pohela Boishakhi be a good and prosperous one for all of us.
  • Let us welcome this Nabo Barsho with great hope, eagerness and anticipation. Let us look forward to a plentiful year of joy, satisfaction, peace and prosperity.
  • Let this be a delightful year, filled with delightful things in each of its days.
  • This is a time of new beginnings and for the celebration of life
  • Let this Pohela Boishakhi bring peace and prosperity in the lives of all.
  • Let us vow to take life in our stride this Nabo Barsho and make it tolerable as well as beautiful by accepting sorrow and happiness with sanity.
  • Nabo Barsho! Wish you a happy and prosperous year with love, peace, hope and joy for the year ahead.
  • Let this Nabo Barsho usher in a Good and Sweet Year, both materially and spiritually.
  • From this Nabo Barsho let us go forward with great hope that all things will be possible.
  • Let this year be filled with the things that are truly good.
  • Another Pohela Boishakhi is here. Let this New Year herald new optimism, zeal and cheer.
  • I hope this Nabo Barsho will bring cheer, prosperity and peace in your life. Let us pray that we gain enough strength to accept the highs and lows of life with equanimity.
  • From this Nabo Barsho let us only spread love, peace and laughter.
  • Another Nabo Barsho here, Let us banish our worries and mistakes and start afresh. Happy Nabo Barsho!

“May you come up as bright as sun, as cool as water and as sweet as honey. Hope this Boishakhi fulfill all your desires and wishes. 

“Shubo Nabo Barsho” and Happy Pohela Boishak to all of you!!!

~ পয়লা বৈশাখ ~

পয়লা বৈশাখ বা পহেলা বৈশাখ (বাংলা পঞ্জিকার প্রথম মাস বৈশাখের ১ তারিখ) বাংলা সনের প্রথম দিন, তথা বাংলা নববর্ষ। দিনটি বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গে নববর্ষ হিসেবে বিশেষ উৎসবের সাথে পালিত হয়। ত্রিপুরায় বসবাসরত বাঙালিরাও এই উৎসবে অংশ নেয়। সে হিসেবে এটি বাঙালিদের একটি সর্বজনীন উৎসব। বিশ্বের সকল প্রান্তের সকল বাঙালি এ দিনে নতুন বছরকে বরণ করে নেয়, ভুলে যাবার চেষ্টা করে অতীত বছরের সকল দুঃখ-গ্লানি। সবার কামনা থাকে যেন নতুন বছরটি সমৃদ্ধ ও সুখময় হয়। বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যবসায়ীরা একে নতুনভাবে ব্যবসা শুরু করার উপলক্ষ্য হিসেবে বরণ করে নেয়। গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জি অনুসারে ১৪ই এপ্রিল অথবা ১৫ই এপ্রিল পহেলা বৈশাখ পালিত হয়। আধুনিক বা প্রাচীন যে কোন পঞ্জিকাতেই এই বিষয়ে মিল রয়েছে। বাংলাদেশে প্রতি বছর ১৪ই এপ্রিল এই উৎসব পালিত হয়। বাংলা একাডেমী কর্তৃক নির্ধারিত আধুনিক পঞ্জিকা অনুসারে এই দিন নির্দিষ্ট করা হয়েছে। এদিন বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের সকল সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকে।

বাংলা দিনপঞ্জীর সঙ্গে হিজরী ও খ্রিস্টীয় সনের মৌলিক পার্থক্য হলো হিজরী সন চাঁদের হিসাবে এবং খ্রিস্টীয় সন ঘড়ির হিসাবে চলে। এ কারণে হিজরী সনে নতুন তারিখ শুরু হয় সন্ধ্যায় নতুন চাঁদের আগমনে। ইংরেজি দিন শুর হয় মধ্যরাতে। আর বাংলা সনের দিন শুরু হয় ভোরে, সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে। কাজেই সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে শুর হয় বাঙালির পহেলা বৈশাখের উৎসব।

ইতিহাস ~

হিন্দু সৌর পঞ্জিকা অনুসারে বাংলা বারটি মাস অনেক আগে থেকেই পালিত হত। এই সৌর পঞ্জিকার শুরু হত গ্রেগরীয় পঞ্জিকায় এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময় হতে। হিন্দু সৌর বছরের প্রথম দিন আসাম, বঙ্গ, কেরল, মনিপুর, নেপাল, উড়িষ্যা, পাঞ্জাব, তামিল নাড়ু এবং ত্রিপুরার সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে অনেক আগে থেকেই পালিত হত।এখন যেমন নববর্ষ নতুন বছরের সূচনার নিমিত্তে পালিত একটি সর্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে, এক সময় এমনটি ছিল না। তখন নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখ আর্তব উৎসব তথা ঋতুধর্মী উৎসব হিসেবে পালিত হত। তখন এর মূল তাৎপর্য ছিল কৃষিকাজ। প্রাযুক্তিক প্রয়োগের যুগ শুরু না হওয়ায় কৃষকদের ঋতুর উপরই নির্ভর করতে হত। ভারতবর্ষে মুঘল সম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার পর সম্রাটরা হিজরী পঞ্জিকা অনুসারে কৃষি পণ্যের খাজনা আদায় করত। কিন্তু হিজরি সন চাঁদের উপর নির্ভরশীল হওয়ায় তা কৃষি ফলনের সাথে মিলত না। এতে অসময়ে কৃষকদেরকে খজনা পরিশোধ করতে বাধ্য করতেহত। খাজনা আদায়ে সুষ্ঠুতা প্রণয়নের লক্ষ্যে মুঘল সম্রাট আকবর বাংলা সনের প্রবর্তন করেন। তিনি মূলত প্রাচীন বর্ষপঞ্জতে সংস্কার আনার আদেশ দেন। সম্রাটের আদেশ মতে তৎকালীন বাংলার বিখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও চিন্তাবিদ ফতেহউল্লাহ সিরাজি সৌর সন এবং আরবি হিজরী সনের উপর ভিত্তি করে নতুন বাংলা সনের নিয়ম বিনির্মাণ করেন। ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০ই মার্চ বা ১১ই মার্চ থেকে বাংলা সন গণনা শুরু হয়। তবে এই গণনা পদ্ধতি কার্যকর করা হয় আকবরের সিংহাসন আরোহণের সময় (৫ই নভেম্বর, ১৫৫৬) থেকে। প্রথমে এই সনের নাম ছিল ফসলি সন, পরে বঙ্গাব্দ বা বাংলা বর্ষ নামে পরিচিত হয়। ঢাকার ইসলামপুরের এক কাপড়ের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের হালখাতা অনুষ্ঠানআকবরের সময়কাল থেকেই পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন শুরু হয়। তখন প্রত্যেককে চৈত্র মাসের শেষ দিনের মধ্যে সকল খাজনা, মাশুল ও শুল্ক পরিশোধ করতে হত। এর পর দিন অর্থাৎ পহেলা বৈশাখে ভূমির মালিকরা নিজ নিজ অঞ্চলের অধিবাসীদেরকে মিষ্টান্ন দ্বারা আপ্যায়ন করতেন। এ উপলক্ষ্যে বিভিন্ন উৎসবের আয়োজন করা হত। এই উৎসবটি একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে পরিণত হয় যার রুপ পরিবর্তন হয়ে বর্তমানে এই পর্যায়ে এসেছে। তখনকার সময় এই দিনের প্রধান ঘটনা ছিল একটি হালখাতা তৈরী করা। হালখাতা বলতে একটি নতুন হিসাব বই বোঝানো হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে হালখাতা হল বাংলা সনের প্রথম দিনে দোকানপাঠের হিসাব আনুষ্ঠানিকভাবে হালনাগাদ করার প্রক্রিয়া। গ্রাম, শহর বা বাণিজ্যিক এলাকা, সকল স্থানেই পুরনো বছরের হিসাব বই বন্ধ করে নতুন হিসাব বই খোলা হয়। হালখাতার দিনে দোকনদাররা তাদের ক্রেতাদের মিষ্টান্ন আপ্যায়ন করে থাকে। এই প্রথাটি এখনও অনেকাংশে প্রচলিত আছে, বিশেষত স্বর্ণের দোকানে। আধুনিক নববর্ষ উদযাপনের খবর প্রথম পাওয়া যায় ১৯১৭ সালে। প্রথম মহাযুদ্ধে ব্রিটিশদের বিজয় কামনা করে সে বছর পহেলা বৈশাখে হোম কীর্ত্তণ ও পূজার ব্যবস্থা করা হয়। এরপর ১৯৩৮ সালেও অনুরূপ কর্মকান্ডের উল্লেখ পাওযা যায়।[১] পরবর্তী সময়ে ১৯৬৭ সনের আগে ঘটা করে পহেলা বৈশাখ পালনের রীতি তেমন একটা জনপ্রিয় হয় নি।

বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন ~

একটি বৈশাখী মেলানতুন বছরের উৎসবের সঙ্গে গ্রামীণ জনগোষ্টীর কৃষ্টি ও সংস্কৃতির নিবিড় যোগাযোগ। গ্রামে মানুষ ভোরে ঘুম থেকে ওঠে, নতুন জামাকাপড় পড়ে এবং আত্মীয়স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবের বাড়িতে বেড়াতে যায়। বাড়িঘর পরিষ্কার করা হয় এবং মোটমুটি সুন্দর করে সাজানো হয়। বিশেষ খাবারের ব্যবস্থাও থাকে। কয়েকটি গ্রামের মিলিত এলাকায়, কোন খোলা মাঠে আয়োজন করা হয় বৈশাখী মেলার। মেলাতে থাকে নানা রকম কুঠির শিল্পজাত সামগ্রীর বিপণন, থাকে নানারকম পিঠা পুলির আয়োজন। অনেক স্থানে ইলিশ মাছ দিয়ে পান্তা ভাত খাওয়ার ব্যবস্থা থাকে। এই দিনের একটি পুরনো সংস্কৃতি হলো গ্রামীণ ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন। এর মধ্যে থাকে নৌকাবাইচ, লাঠি খেলা কিংবা কুস্তির। বাংলাদেশে এরকম কুস্তির সবচেয়ে বড় আসরটি হয় ১২ বৈশাখ, চট্টগ্রাম-এর লালদিঘী ময়দান-এ। এটি জব্বারের বলি খেলা নামে পরিচিত।

ঢাকায় রমনার বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণ ও মঙ্গল শোভাযাত্রা ~

চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে পহেলা বৈশাখে শোভাযাত্রার একটি অংশবাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরে পহেলা বৈশাখের মূল অনুষ্ঠানের কেন্দ্রবিন্দু সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানট-এর গানের মাধ্যমে নতুন বছরের সূর্যকে আহবান। পহেলা বৈশাখ সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে ছায়ানটের শিল্পীরা সম্মিলত কন্ঠে গান গেয়ে নতুন বছরকে আহবান জানান। স্থানটির পরিচিতি বটমূল হলেও প্রকৃত পক্ষে যে গাছের ছায়ায় মঞ্চ তৈরী হয় সেটি বট গাছ নয়, অশ্বত্থ গাছ [২]। ১৯৬০-এর দশকে পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠির নিপীড়ন ও সাংস্কৃতিক সন্ত্রাসের প্রতিবাদে ১৯৬৭ সাল থেকে ছায়ানটের এই বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের সূচনা। [২]। ঢাকার বৈশাখী উৎসবের একটি আবশ্যিক অঙ্গ মঙ্গল শোভাযাত্রা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে পহেলা বৈশাখে সকালে এই শোভাযাত্রাটি বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় চারুকলা ইনস্টিটিউটে এসে শেষ হয়। এই শোভাযাত্রায় গ্রামীণ জীবণ এবং আবহমান বাংলাকে ফুটিয়ে তোলা হয়। শোভাযাত্রায় সকল শ্রেণী-পেশার বিভিন্ন বয়সের মানুষ অংশগ্রহণ করে। শোভাযাত্রার জন্য বানানো নয় রং-বেরঙের মুখোশ ও বিভিন্ন প্রাণীর প্রতিলিপি। ১৯৮৯ সাল থেকে [২] এই মঙ্গল শোভাযাত্রা পহেলা বৈশাখের উৎসবের একটি অন্যতম আকর্ষণ।

চট্টগ্রামে বর্ষবরণ ~

চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ।বন্দরনগরী চট্টগ্রামে পহেলা বৈশাখের উৎসবের মূল কেন্দ্র ডিসি পাহাড় পার্ক। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আয়োজনে এখানে পুরোনে বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে বরণ করার জন্য দুইদিনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মুক্ত মঞ্চে নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি থবকে নানা প্রামীণ পন্যের পশরা। থাকে পান্তা ইলিশের ব্যবস্থাও। চট্টগ্রামে সম্মিলিত ভাবে পহেলা বৈশাখ উদযাপনের উদ্যোগ ১৯৭৩, ১৯৭৪ ও ১৯৭৫ সালে রাজনৈতিকগণের চেষ্টায়। ইস্পাহানী পাহাড়ের পাদদেশে এই অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়। ১৯৭৮ সালে এই উৎসা এখনকবর ডিসি হিল পার্কে সরিয়ে নেওযা হয়। ১৯৭৮ সালের উদ্যোগের সয্গে জড়িত ছিলেন ওয়াহিদুল হক, নির্মল মিত্র, মিহির নন্দী, অরুন দাশ গুপ্ত, আবুল মোমেন সুভাষ দে প্রমূখ। প্রথম দিকে প্রত্যেক সংগঠন থেকে দুইজন করে নিয়ে একটি স্কোয়াড গঠন করা হত। সেই স্কোয়াডই সম্মিলিত সংগীত পরিবেশন করতো। ১৯৮০ সাল থেকে সংগঠনগুলো আলাদাভাবে গাণ পরিবেশন শুরু করে। পরে গ্রুপ থিয়েটার সমন্বয় পরিষদ যুক্ত হওয়ার পর অনুষ্ঠানে নাটকও যুক্ত হয়েছ। [৩] নগরীর অন্যান্য নিয়মিত আয়োজনের মধ্যে রয়েছে শিশু সংগঠন ফুলকীর তিনদিন ব্যাপী উৎসা যা শেষ হয় বৈশাখের প্রথম দিবসে। নগরীর মহিলা সমিতি স্কুলে একটি বর্ষবরণ মেলা হয়ে থাকে।

পার্বত্য জেলায়, আদিবাসীদের বর্ষবরণ ~

বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকার প্রধান তিনটি ক্ষুদ্রজাতিস্বত্তা রয়েছে যাদের প্রত্যেকেরই বছরের নতুন দিনে উৎসব আছে। ত্রিপুরাদের বৈশুখ, মারমাদের সাংগ্রাই ও চাকমাদের বিজু উৎসব। বর্তমানে তিনটি জাতিস্বত্ত্বা একত্রে এই উৎসবটি পালন করে। যৌথ এই উৎসবের নাম বৈসাবি। উৎসবের নানা দিক রয়েছে। এর মধ্যে একটি হলো মার্মাদের পানি উৎসব।

Giveaway iPhone 7 Plus

No comments

You must be logged in to post a comment.